সময় প্রকাশন

‘সময় প্রকাশন’ বাংলাদেশের একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান যার শুরু হয় ১৯৮৮ সাল থেকে। লেখক, পাঠক ও প্রকাশক – এই তিনের সমন্বয়ে সময় উপযোগী সংস্থা ‘সময় প্রকাশন’।
 
বর্তমান সাহিত্যের সাথে চিরায়ত বাংলা সাহিত্যের সম্মীলন ঘটিয়েছে ‘সময় প্রকাশন’। আমরা যুদ্ধ, ইতিহাস এবং সভ্যতা বিষয়ক বইকে প্রাধান্য দেই বেশি। এ প্রকাশনী গণিত, কল্পবৈজ্ঞানিক এবং পরিবেশগত ভূমিকা সম্পন্ন বইয়ে ভরপুর।
 
‘সময় প্রকাশন’ নিয়মিতভাবে স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠিত লেখকদের দুর্লভ রচনা প্রকাশ করে থাকে। দেশপ্রিয় লেখকদের পাশাপাশি তরুণ লেখকদের লেখা রচনা প্রকাশে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে ‘সময় প্রকাশন’।’সময় প্রকাশন’ ইতিমধ্যে তেরো শতাধিক বই প্রকাশ করেছে।
 
‘সময় প্রকাশনের’ বই কেনার জন্য নির্বাচন করার দরকার নেই কারণ ‘সময় প্রকাশন’ শুধুমাত্র ঐ সব বই প্রকাশ করে যা আগে থেকেই বাছাই করা আছে।
 
‘সময় প্রকাশন’ বাংলাদেশে এবং সেই সমস্ত দেশে যেখানে বাংলাভাষী মানুষের বসবাস রয়েছে, যেমন – কলকাতা, নিউইয়র্ক, লন্ডন, টরন্টো ইত্যাদি শহরে বই প্রকাশ করে থাকে।
 
আমাদের স্লোগান – ‘বই সময়ের প্রতিধ্বনি’।
 
আমরা বিশ্বাস করি,
সময়ের কণ্ঠস্বর ‘সময় প্রকাশন’।
অনন্ত কালের কণ্ঠস্বর ‘সময় প্রকাশন’।
Farid Ahmed
ফরিদ আহমেদ | প্রকাশক, সময় প্রকাশন

ফরিদ আহমেদ | প্রকাশক

ভরা বর্ষায় শ্রাবণ মাসের ২৩ তারিখে বর্ষণমুখর সন্ধ্যায় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সর্ববৃহৎ জেলা ময়মনসিংহ শহরে হ্যারিকেনের আলোয় জন্ম (সে কালে সব জায়গায় বিদ্যুৎ ছিল না)। ইংরেজি ক্যালেন্ডার অনুযায়ী কখনও ৭, কখনও ৮ আবার কখনও ৯ আগস্ট। স্কুল শিক্ষকের বদৌলতে ১২ ফেব্রুয়ারি। জীবনের প্রথম পাসপোর্টের ফরম পূরণ করার সময় বাংলার সঙ্গে ইংরেজি ক্যালেন্ডারের মিল রেখে ৯ আগস্ট। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ প্রণীত বাংলা একাডেমির নতুন বাংলা দিনপঞ্জি অনুসারে ৭ আগস্টে আটকে গেছে জন্মতারিখ। পূর্ব পাকিস্তান ও বাংলাদেশের ময়মনসিংহ শহরে ভাগাভাগি করে কেটেছে শৈশব। একই শহরে কৈশোর। কৈশোরোত্তীর্ণ যৌবনের শুরুতেই ঢাকায় পদার্পণ পড়াশোনার উদ্দেশ্যে। এখনো পর্যন্ত এ শহরেই, গড়েছেন স্থায়ী আবাসও।

অনেক ক্ষেত্রে সম্ভাবনা থাকলেও শেষ পর্যন্ত প্রকাশনাতেই থিতু হওয়া। ‘সময় প্রকাশন’ এর প্রকাশক হিসেবে দুই যুগের বেশি সময় পার করেছেন। এ পর্যন্ত প্রকাশ করেছেন দেড় হাজারেরও বেশি বই। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রকাশনা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক। পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ততা সব সময়। ‘বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি’র সৃজনশীল স্ট্যান্ডিং কমিটি ও বইমেলা স্ট্যান্ডিং কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। সৃজনশীল প্রকাশকদের ব্যবসায়িক সংগঠন ‘বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতি’র প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। প্রতিষ্ঠাকালীন গঠনতন্ত্রে স্বাক্ষরকারীদের অন্যতম। ২০১১-২০১৩ মেয়াদে এই সংগঠনের নির্বাহী পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। প্রথম বছরই ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার উদ্যোগে এই সমিতির আয়োজনে কলকাতায় প্রথম একক বাংলাদেশ বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। কলকাতায় পর পর তিনটি বইমেলা আয়োজনের দায়িত্ব পালন করেন। এখনও এই মেলার ধারাবাহিকতা অক্ষুণ্ণ আছে। ২০১০-২০১২, ২০১২-২০১৪, ২০১৫-২০১৭ পর্যন্ত তিন দফায় তিনি জিবি মেম্বার ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ সংগঠন এফবিসিসিআই’এর।

পারিবারিক সূত্রে ছোটবেলায়ই বাংলাদেশের অনেক জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছেন। বড় হয়ে ভ্রমণের নেশায় ঘুরে বেড়িয়েছেন দেশ-বিদেশ। দেখেছেন এশিয়ার দক্ষিণ কোরিয়া, হংকং, নেপাল, ভারত, আবুধাবি, দুবাই, সৌদি আরব, শ্রীলংকা, মালদ্বীপ, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর। ইউরোপের ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড, উত্তর ও দক্ষিণ আয়ারল্যান্ড, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, সুইডেন ও গ্রীস। আমেরিকার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অনেকগুলো অঙ্গরাজ্য এবং কানাডার দু’টি অঙ্গরাজ্যের তিনটি বড় বড় শহর।

‘সময় প্রকাশন’-এর সাইনবোর্ড নিয়ে সুইডেনের গোথেনবার্গের ‘গোথে ইন্টারন্যাশনাল বুক ফেয়ার’-এ অংশগ্রহণ জীবনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা।

Shopping Cart
Scroll to Top